গোবিন্দগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে যুবতীর মৃত্যু, পরিবারের অভিযোগ হত্যা

গাইবান্ধা: গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে এক যুবতীর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ৯টায় মারা যাওয়া যুবতী উপজেলার ফুলবাড়ী ইউনিয়নের ছোট সাতাইল বাতাইল ফুটানি বাজার এলাকার মমিনুল ইসলামের স্ত্রী জেসমিন আক্তার প্রিয়া (১৭)। কিন্তু পরিবারের অভিযোগ তাকে মেরে ফেলা হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ প্রিয়ার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা মর্গে প্রেরণ করেছে।
জানা গেছে, জেসমিন আক্তার প্রিয়া সোমবার দুপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। প্রিয়ার মৃত্যুর পর তার পরিবার থেকে অভিযোগ করা হয় তাকে নির্যাতন করে হত্যা করেছে তার স্বামীর পরিবার।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক ডা. রেজাউল করিম জানান, প্রিয়া মঙ্গলবার সকাল ৯টায় জ্বর সর্দির মত করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যায়। তিনি আরও জানান, তার শরীরে কোথাও আঘাতে চিহ্ন লক্ষ্য করা যায় নি।
গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মজিদুল ইসলাম জানান, প্রিয়া জ্বর সর্দি সহ করোনা উপসর্গ নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। এই উপসর্গ নিয়েই তার মৃত্যু হয়।
গোবিন্দগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম মেহেদী হাসান জানান, প্রিয়া করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে এই প্রত্যয়ন দেওয়া হয়েছে। কিন্তু মারা যাওয়া প্রিয়ার পরিবার মেরে ফেলার অভিযোগ করায় পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করেছে।
উল্লেখ্য, জেসমিন আক্তার প্রিয়ার গত মাসের আনুমানিক ২০ তারিখের দিকে করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও একবার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিল। পরবর্তিতে করোনা পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ আসে। আবার সোমবার দুপুরে প্রিয়া করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়। মঙ্গলবার সকাল ৯টায় তার মৃত্যু হয়।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *