গোলাপগঞ্জে রাস্তার কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

গোলাপগঞ্জে রাস্তার কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি: গোলাপগঞ্জে ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে বারকোট মাদ্রাসা পর্যন্ত গিয়াস উদ্দিন রাস্তার কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। অনিয়মের প্রতিবাদে গতকাল বৃহস্পতিবার বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী রাস্তার কাজ বন্ধ করে দেয়। উপজেলা প্রকৌশলী ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ সঠিকভাবে সম্পাদনের প্রতিশ্রুতি দিলে বিক্ষুব্ধ মানুষ শান্ত হয় এবং কাজ চালিয়ে যাওয়ার সম্মতি দেয়। স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করেন, প্রায় দেড় কিলোমিটার রাস্তাটি প্রায় ১০ বছর আগে পাকাকরণ করা হলে দীর্ঘদিন এ রাস্তাটি মেরামত করা হয়নি। এতে রাস্তার পিছ উঠে বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়। গত কিছু দিন আগে মেরামতের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগ ২৩ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেয়। কাজ বাস্তবায়নের দায়িত্ব পান জিলানী কন্ট্রাকশন নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। কাজটি বাস্তবায়নে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ব্যাপক অনিয়ম শুরু করে। গত বুধবার রাতের আধারে পূর্ব বারকোটের মাদ্রাসার সংলগ্ন এলাকায় কাজে অনিয়ম দেখে এলাকাবাসী কাজ বন্ধ করে দেয়। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে উপজেলা প্রকৌশলী মাহমুদুল হাসান ঘটনাস্থলে যান।
এসময় স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, রাস্তা কার্পেটিং করার পর হাত দিয়ে তুলা যাচ্ছে। কোথাও পিচ আবার পা দিয়ে খোঁচা দিলে তা উঠে যায়। এত নিম্নমানের কাজ অন্য কোন রাস্তায় হয়নি। গাড়ি চলাচল করলেই পিচ উঠে যাবে। কাজ চলাকালে ঠিকাদের কেউ বা ইঞ্জিনিয়ার অফিসের কোন লোকজন উপস্থিত থাকে না। ফলে শ্রমিকরা তাদের ইচ্ছামত কাজ করে। কোথায়ও আধা ইঞ্চি আবার কোথায় এরচেয়ে কম পিচ ঢালাই করা হচ্ছে বলেও জানায় তারা।
এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা তওফিক আহমদ বলেন, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নিম্ব মানের কাজ করে চলে যেতে চেয়েছিল। এলাকাবাসী প্রতিবাদ করলে তা সম্ভব হয়নি।
স্থানীয় মেম্বার মকবিল আলী বলেন, স্থানীয়রা গত রাতে কাজে অনিয়ম দেখে কন্ট্রাক্টদারকে কাজ করতে নিষেধ করলে কাজ বন্ধ হয়ে যায়।
কন্ট্রাক্টদার জুবের আহমদ রাস্তার অনিয়মের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, আমি যেসব স্থানে গাফলতি করেছি তা ঠিক করে দেব। এ ব্যাপারে ঠিকাদের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে তার নাম্বার পাওয়া যায়নি।
উপজেলা প্রকৌশলী মাহমুদুল হাসান বলেন, কিছু যায়গায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কিছু ত্রুটি করেছে। এই ক্রুটি গুলো সমাধান না করে এরা যেতে পারবেনা।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *