ডিমলায় মিথ্যে মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগে ওসি’র বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

ডিমলায় মিথ্যে মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগে ওসি’র বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

ক্রাইম রিপোর্টার॥নীলফামারীর ডিমলায় উৎকোচ না পেয়ে আহসান বিন রউফ ওরফে জামি(৪৭)নামে এক ব্যক্তিতে আটকের পর দুটি মাদক মামলায় আদালতে প্রেরনের অভিযোগে ডিমলা থানার ওসি মফিজ উদ্দিন শেখের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগির পরিবার।
রোববার(১৮আগস্ট)সন্ধ্যার সময় ডিমলা রিপোর্টার্স ইউনিটে ওই সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের সামনে সাজানো মামলায় পিতাকে ফাঁসানো ঘটনার বিবরন তুলে ধরতে গিয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন ভুক্তভোগির বড় ছেলে।
এ সময়ে ভুক্তভোগির বড় ছেলে সাদনাম রউফ অভিযোগ করে বলেন,শুক্রবার(১৬ই আগস্ট)রাত ৯টার সময় উপজেলার পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের ঠাকুরগঞ্জ দ্বারাজগঞ্জ গ্রামের মৃত,আব্দুর রউফের ছেলে ও তার বাবা আহসান বিন রউফ ওরফে জামি নিজের ব্যবহৃত(ঢাকা মেট্রো-গ ২৬-৬১০২) প্রাইভেট কারটি নীলফামারী-১(ডোমার-ডিমলা)আসনের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা আফতাফ উদ্দিন সরকারের সদরের বাসার সামনে পার্কিং করে রেখে পাশেই পরিচিত ব্যক্তির সাথে আলাপচারিতা করতে থাকেন।কিছুক্ষনের মধ্যে কে বা কাহার কাছে কি জেনে সেখানে ডিমলা থানার ওসি মফিজ উদ্দিন শেখ সহ একদল পুলিশ হাজির হয়ে তার বাবার দেহ ও তার ব্যবহৃত কার গাড়িটি তল্লাশি করে কিছু না পেলেও গাড়িটি এবং তার বাবাকে পুলিশ সন্দেহজনক ভাবে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।এরপর থানায় নিয়ে গিয়ে তাকে হ্যান্ডকাপ পড়িয়ে ও চোখ বেধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করে বিভিন্ন মাধ্যমে মোটা অংকের টাকা উৎকোচ দাবি করেন থানার ওসি মফিজ উদ্দিন শেখ।কিন্তু তার বাবা কোনো অন্যায় না করায় তারা দাবিকৃত টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে পরেরদিন তার বাবাকে ২/৮/২০১৯ইং তারিখে পুলিশ কর্তৃক ৪০বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধারের একটি মামলায় এবং ১৪/৮/২০১৯ইং তারিখে বিজিবি কর্তৃক ১বোতল অফিসার্স চয়েস উদ্ধারের একটি মামলা মিলে পুর্বের দুটি মাদক মামলায় ফাঁসিয়ে আদালতে প্রেরন করেন ডিমলা থানার ওসি মফিজ উদ্দিন শেখ।
এ ঘটনায় তার বাবার নিঃশর্ত মুক্তি সহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তপক্ষের হস্তক্ষেপে ডিমলা থানার ওসির দৃস্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করেন ভুক্তভোগির পরিবার।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ডিমলা থানার ওসি মফিজ উদ্দিন শেখ টাকা দাবি করার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন,দুটি মামলায় নয় ৪০বোতল ফেন্সিডিলের মামলা তদন্ত করে জামি’র সম্পৃক্ততার প্রমান পাওয়ায় তাকে আটকের পর সেই মামলায় আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।
নীলফামারী পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন বলেন,ডিমলায় স্থানীয় সংসদ সদস্যের বাসার সামনে থেকে একজনকে আটকের বিষয়টি আমি জানলেও ওসির বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের বিষয়টি আমার জানা নেই।যদি এমনটা হয়ে থাকে তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *