- জাগো বাহে 24 - http://www.jagobahe24.com -

পঞ্চগড়ে বিদেশ ফেরত ৮জন হোম কোয়ারেন্টাইনে

মোঃ লিহাজ উদ্দীন মানিক, প্রতিনিধি: পঞ্চগড় ঃ পঞ্চগড় জেলার সদর, দেবীগঞ্জ ও বোদা উপজেলায় বিদেশ ফেরত এক নারী সহ ৮জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। স¤প্রতি ৮জনই দুবাই, সিঙ্গাপুর, সৌদি আরব, ওমান, মালয়েশিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়া থেকে ফিরেছেন। তাদের শরীরে করোনাভাইরাসের কোনো লক্ষণ পাওয়া যায়নি বলে গত বুধবার বিকেলে পঞ্চগড়ের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ ফজলুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। আক্রান্তদের মধ্যে সদর উপজেলার ১ জন, দেবীগঞ্জের ৪ জন এবং বোদা উপজেলার ৩ জন। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, গত ৪ মার্চ দক্ষিণ কোরিয়া হতে দেবীগঞ্জ উপজেলা সদরের মুন্সিপাড়াস্থ গ্রামের বাসায় ফেরেন বাদল (৩০)। গত ৮ মার্চ পঞ্চগড় সদর উপজেলার মাগুরা ইউনিয়নের আজাদপুর এলাকার মোঃ রুবেল (৩০) ওমান থেকে বিমানযোগে ঢাকায় ফেরেন। পরে তিনি সড়ক পথে বাড়িতে আসেন। গত ১০ মার্চ জেলার বোদা উপজেলার মাড়েয়া ইউনিয়নের কলোনি পাড়া এলাকার সূর্যবানু (৩৫) নামে এক নারী দুবাই থেকে ঢাকায় ফেরেন। পরদিন তিনি গ্রামের বাসায় ফেরেন। গত ১১ মার্চ দেবীগঞ্জ উপজেলার সুন্দরদিঘি ইউনিয়নের আতাউর রহমান সৌদি আরব থেকে বিমানযোগে প্রথমে ঢাকায় এরপর বাসযোগে গ্রামের বাড়িতে ফিরেছেন। গত ১৪ মার্চ মালয়েশিয়া থেকে দেশে ফেরেন বোদা উপজেলার ঝলইশালশিরি ইউনিয়নের বাগানবাড়ি এলাকার আশরাফুল ইসলাম (৩২) ও বেংহাড়ি বনগ্রাম ইউনিয়নের সইমনপাড়া এলাকার মকছেদুল ইসলাম (২৭), একই দিন ১৪ মার্চ সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফেরেন দেবীগঞ্জ উপজেলার শালডাংগা ইউনিয়নের সাইফুল ইসলাম। তিনি সিঙ্গাপুর থেকে বিমানযোগে ঢাকায় আসেন। এরপর তিনি গ্রামের বাড়িতে এসেছেন।
সর্বশেষ গত ১৭ মার্চ রাতে দেবীগঞ্জ উপজেলার সুন্দরদিঘী ইউনিয়নের খরারপাড় এলাকার সাদ্দাম হোসেন নামে (৩২) এক ব্যক্তি সিঙ্গাপুর থেকে গ্রামের বাড়িতে ফিরেছেন। এদের সকলকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। দেবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রত্যয় হাসান ও দেবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হাসিনুর রহমান জানান, বিদেশ ফেরত চারজনের শরীরে করোনার কোনো লক্ষণ পাওয়া যায়নি। ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকর্মীদের মাধ্যমে ১৪ দিন পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টাইনে রেখে সার্বক্ষণিক তাদের নজরদারি করা হচ্ছে। বোদা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এস আই এম রাজিউল করিম জানান, বিদেশ ফেরত ৩ জনের স্বাস্থ্য পরীক্ষা নিরীক্ষা করে করোনার কোনো উপসর্গ পাওয়া যায়নি। তবে তাদেরকে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কর্মীদের তত্ত¡াবধানে তাদের নজরদারি করা হচ্ছে। পঞ্চগড়ের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ ফজলুর রহমান জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাদের তত্ত¡াবধানে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সহকারীরা হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা ব্যক্তিদের খোঁজখবর নিচ্ছেন। তবে তিনি কারো শরীরে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার উপসর্গ পাওয়া যায়নি বলে জানান।