প্রতিমা শিল্পে করোনার প্রভাব

প্রতিমা শিল্পে করোনার প্রভাব

সত্যেন্দ্র নাথ রায় ,ডোমার(নীলফামারী) প্রতিনিধি:

পূজা উদযাপন পরিষদের করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ২৬ দফা থাকায় পূজা মন্ডবগুলোতে এবার সাদাসিধে ভাবে শারদীয় দূর্গা পূজা উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেয়ায় বেশি দাম দিয়ে বড় বড় প্রতিমা তৈরী করছে না কোন মন্ডব কমিটি ।আসন্ন শারদীয়া দূর্গা পুজার আগেই করোনা ভাইরাসের প্রভাব পড়েছে প্রতিমা শিল্পে, প্রতিমা তৈরির কারিগরদের চোখে মুখে সেই ছাপই স্পষ্ট । ঢিলে ঢালা ভাবে সময় পাড় করছেন প্রতিমা তৈরীর কারিগরেরা। প্রতিমা তৈরীর কারিগরেরা সংকিত হয়ে পড়েছেন।
নীলফামারী শ্রী শ্রী আনন্দময়ী কালী মাতা মন্দিরের দূর্গা প্রতিমা তৈরীর কারিগর তাপস পাল অজয় বলেন, এই সময় আমাদের হাতে কোন সময় থাকে না, এবার মহামারী করোনা কারণে বড় বড় প্রতিমা তৈরী করছে না মন্ডবগুলো, এ কারণে আমরা আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ, গত বছর এই কালি মাতা মন্দিরে ৬৫ হাজার টাকার প্রতিমা তৈরী করেছি, এবার ৩৫ হাজার টাকার মধ্যে করতে হচ্ছে।
এ পর্যন্ত ৮টা প্রতিমা তৈরীর অর্ডার পেয়েছি এর মধ্যে একটি ৬০ হাজার আর বাকি গুলো অতি অল্প মুল্যের।

রুহীদাস পাল (নিন্দালু) বাবা রাজেশ্বর পাল বংশ পরস্পরা প্রতিমা তৈরীর কাজ করে আসছে। প্রতিমা তৈরী ছাড়া আর অন্য কোন কাজ জানেন না তিনি , প্রতিমা তৈরী করেই তাকে সংসার চালাতে হয় । তিনি বলেন, করোনার কারণে প্রতিমার অর্ডারের সংখ্যা কম আসছে, এ পর্যন্ত ৬টা অর্ডার পেয়েছি তাও আবার অল্প মুল্যের ।

খোকশাবাড়ী ইউনিয়নের হেমন্ত পাল বলেন, আমাদের গ্রামে খালি কোনো মতে প্রতিমা তৈরী করি চায়ছে, আগত কত ভালো করি প্রতিমা বানে দিবার কছিল, এলা খালি কয়ছে একখান প্রতিমা বানে দাও কোনো মতে পূজা খান করি ৮-১০ হাজার টাকার ভিতর।

বাংলাদেশ পূর্জা উদযাপন পরিষদ, নীলফামারী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ রমেন্দ্র নাথ বর্দ্ধন (বাপ্পি) বলেন, করোনা মোকাবেলায় কেন্দ্রের ২৬ দফা নির্দেশনা মেনে পূজা পরিচালনা করতে বলা হয়েছে মন্ডবগুলোকে, পূজা মন্ডবের সংখ্যা আগের মতোই থাকবে, কিছু পূজা মন্ডবগুলোতে কমিটি নিয়ে বিরোধ থাকলেও আমাদের উপজেলা কমিটি, ইউনিয়ন কমিটির সহায়তায় স্থানীয় সুধীজনদের নিয়ে দ্রুত সমস্যা সমাধান করা হচ্ছে এবং কেন্দ্রের নির্দেশনা মেনে পূজা পরিচালনা করার জন্য বিশেষ ভাবে মন্ডবগুলোকে বলা হচ্ছে।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *