ফুলবাড়ীতে মিটার পাঠক এর বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষের মিথ্যা মামলা দায়ের

ফুলবাড়ীতে মিটার পাঠক এর বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষের মিথ্যা মামলা দায়ের

মোঃ আফজাল হোসেন দিনাজপুর প্রতিনিধি:ফুলবাড়ীতে মিটার পাঠক কে প্রতিপক্ষরা ডেকে নিয়ে মারপিট করে ও প্রতিপক্ষেই আবার উল্ট মোঃ এ.এস সাহেদ ইসলাম বিরুদ্ধে ফুলবাড়ী থানায় মারপিটের মামলা দায়ের করেন প্রতিপক্ষ মোছাঃমোমেনা বেওয়া। দিনাজপুরের ফুলবাড়ী পৌরসভা এলাকার প্রশ্চিম গৌরি পাড়া গ্রামের মোঃ মোফাজ্জল হোসেন এর পুত্র মোঃ এ এস সাহেদ ইসলাম এর লিখিত অভিযোগে জানা যায় যে, সে ২০১৯ ইং সাল থেকে ফুলবাড়ী আবাসিক বিদ্যুৎ সরবরাহ অফিসে দশ বছর যাবৎ মিঠার পাঠক হিসেবে কাজ করে আসছে।
গত ০৩/১২/২০১৯ ইং তারিখে দুপুর আনুমানিক দেড় ঘটিকার সময় উত্তর সুজাপুর গ্রামে মৃত মতিউর রহমান এর কন্যা মোছাঃ জোয়াইরাহ বেগম মিটার পাঠক মোঃ এ এস সাহেদ ইসলাম কে বিদ্যুৎ বিল বেশি দেওয়ার কারণে মোবাইল ফোনে ডেকে আনেন মোঃ এ এস সাহেদ ইসলাম কে। মিটারের বিল বেশি কেন হয় এই মর্মে তাকে নানা রকম প্রশ্ন করেন মোছাঃ জোয়াইরাহ বেগম। বিল কেন বেশি আসে মিটার পাঠক তাকে বিভিন্ন বিষয় বুঝিয়ে বলেন। ইতি মধ্যে মৃত মতিউর রহমান এর মেয়ে মোছাঃ জোয়াইরাহ ও তার মা মোছাঃ মমেনা বেওয়া মিটার পাঠক কে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করে এবং তার গায়ে জামা ধরে টানা হেচড়া করে বাড়ীতে ঢোকানোর চেষ্টা করে ও মারপিট করে। মিটার পাঠক বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার করলে ঐ এলাকার পুতুল নামে এক ব্যাক্তি বের হয়ে এসে উদ্ধার করে।
ঐ দিন ঐ স্থানে এরুপ ঘটনা ঘটলে মিটার পাঠক সাহেদ ইসলাম সঙ্গে সঙ্গে ফুলবাড়ী আবাসিক বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রে সহকারী প্রকৌশলী মোঃ মামুন ও প্রকৌশলী মোঃ উজ্জল আলী কে মোবাইল ফোনে ঘটনাটি জানালে তারা তাকে তাৎক্ষনিক ঘটনা স্থান থেকে চলে আসার নিদের্শ দেন। নির্দেশ মোতাবেক মিটার পাঠক ঐ স্থান ত্যাগ করেন। আপর দিকে এই ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহি করার জন্য মামলার বাদি মোমেনা বেওয়া ও তার মেয়ে শরীরে থাকা কাপড় ছিড়ে ফেলে মারপিট করেছে মর্মে চিৎকার করে ঐ দিনে ফুলবাড়ী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হন। চিকিৎসা নিয়ে মৃত মতিউর রহমান এর স্ত্রী মোমেনা বেওয়া বাদি হয়ে তিন জনকে আসামি করে ফুলবাড়ী থানায় গত ০৪/১২/২০১৯ ইং তারিখে একটি মারপিটের মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। যাহার মামলা নং-৩। ধারা-৩২৩/৩২৫/৩০৭/৩৭৯/৫০৬/৩৫৪ দ:বি। এ বিষয়ে ফুলবাড়ী বিদ্যুৎ অফিসের প্রকৌশলী মোঃ উজ্জল আলী সাথে মোবাইল ফোনে কথা বললে তিনি বলেন, মামলা হয়েছে মামলা, নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত চাকুরী ফিরে পাওয়ার কথা নয়।
বিদ্যুৎ অফিসে চাকুরি করা অবস্থায় তার উপর অমানবিক ঘটনার বিষয়টি কর্তৃপক্ষ তদন্ত না করে তাকে বিদ্যুৎ অফিস থেকে অন্যায় ভাবে চাকুরি চ্যুত করেছে। এ বিষয়ে ফুলবাড়ী নেসকো বিদ্যুৎ সরবরাহ আবাসিক প্রকৌশলী অফিসের মিটার পাঠক মোঃ এ এম সাহেদ ইসলাম সংশ্লিষ্ট্য কর্তৃপক্ষের তদন্ত সাপেক্ষে ন্যায় বিচারের দাবি জানিয়েছেন।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *