বীরগঞ্জে ৪৪ হতদরিদ্র পরিবার পাচ্ছে সরকারী পাকা ঘর

বীরগঞ্জে ৪৪ হতদরিদ্র পরিবার পাচ্ছে সরকারী পাকা ঘর

খায়রুন নাহার বহ্নি বীরগঞ্জ(দিনাজপুর)প্রতিনিধি ঃ মুজিববর্ষে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলায় দুর্যোগ সহনীয় পাকা ঘর পাচ্ছে ৪৪ পরিবার। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের কাবিটা ও টিআর কর্মসূচির আওতায় বিশেষ খাতের অর্থের মানবিক সহায়তা কর্মসূচির আওতায় বীরগঞ্জ উপজেলায় অসচ্ছল হতদরিদ্র গৃহহীন পরিবার, বিধবা,তালাকপ্রাপ্ত নারী, প্রতিবন্ধী নারী-পুরুষসহ ৪৪টি পরিবারের মধ্যে পাকা ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হচ্ছে। বীরগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো: ছানাউল্ল্যাহ দৈনিক ভোরের দর্পন প্রতিনিধি কে জানান, উপজেলার ১নং শিবরামপুর ইউনিয়নে ৩টি, ২নং পলাশবাড়ী ইউনিয়নে ৪টি,৩নং শতগ্রাম ইউনিয়নে ৪টি, ৪নং পাল্টাপুর ইউনিয়নে ৫টি, ৫নং সুজালপুর ইউনিয়নে ৫টি ৬নং নিজপাড়া ইউনিয়নে ৩টি, ৭নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নে ৪টি, ৮নং ভোগনগর ইউনিয়নে ৪টি, ৯নং সাতোর ইউনিয়নে ৪টি, ১০নং মোহনপুর ইউনিয়নে ৪টি ও ১১নং মরিচা ইউনিয়নে ৪টিসহ উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন মোট ৪৪টি পাকা ঘর নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে। ঘরগুলোর হাতের গাঁথুনি দিয়ে কাঠের দরজা -জানালা, অত্যাধুনিক রঙিন টিনের ছাউনি, ১০ফিট লম্বা ও ১০ফিট আয়তনের ২ কক্ষের বাড়ি,একটি রান্নাঘর ও স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটারি লাট্রিন নির্মাণ হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের তত্বাবধানে দুর্যোগ প্রতিরোধী বাড়িগুলো সম্পূর্ণ বিনামূল্যে নির্মাণ করে দিচ্ছেন সরকার। ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে প্রত্যেকটি বাড়ি নির্মাণে সরকারের খরচ দুই লাখ ৯৯ হাজার ৮৬০ টাকা। বীরগঞ্জ উপজেলার ৫নং সুজালপুর ইউনিয়নের নিখিল রায়, জানান, তার পরিবারের সদস্য নিয়ে সামান্য জমি থাকলেও ঘর বানানোর মতো সামর্থ্য নেই। সরকারি খরচে দুর্যোগ সহনীয় বাড়ি পাওয়ার পর জীবনটা হবে সুখের। নতুন বাড়িতে ভালোভাবে থাকতে পারবো। সবমিলিয়ে সরকারের মানবিক সহায়তা কর্মসূচির আওতায় পাকা ঘর পেয়ে খুশি ৪৪টি পরিবার। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়ামিন হোসেন জানান, প্রথম দফায় হতদরিদ্রদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মাণ কাজ চলছে। মুজিববর্ষেই হতদরিদ্র ৪৪টি পরিবারের মধ্যে ঘরগুলো হস্তান্তর করা হবে।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *