ভাষা শহীদদের প্রতি ঢাকা মহানগর উত্তরের ৪৭নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতৃবৃন্দের শ্রদ্ধা নিবেদন ।।

ভাষা শহীদদের প্রতি ঢাকা মহানগর উত্তরের ৪৭নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতৃবৃন্দের শ্রদ্ধা নিবেদন ।।

মোল­া তানিয়া ইসলাম তমাঃ মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে, ঢাকা মহানগর উত্তরের ৪৭নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতৃবৃন্দ ঐতিহাসিক ভাষা আন্দোলনের বীর শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন । উত্তরার ১২নং সেক্টরের শহীদ মিনারে একুশের প্রথম প্রহরে শুক্রবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেত্রবৃন্দ পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মহান ভাষা আন্দোলনের বীর শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন । পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে তারা সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থেকে ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা উত্তরের সাবেক দক্ষিণ খান ইউনিয়ন আওয়ামী- স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান ৪৭নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী মোঃ সুমন ইসলাম । অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ৪৭নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মোঃ পারভেজ, মোঃ মামুন, সোহেল রানা, মোঃ সজল, মোঃ তুষার, মোঃ আলমগীর হোসেন, মোঃ কামাল মিয়া, মোঃ শফিকুর রহমান শফিক, মোঃ রাজন, আরিফ হাসান, মোঃ ফিরোজ মিয়া প্রমুখ । প্রসঙ্গত, ১৯৫২ সালের ২১ শে ফেব্রুয়ারি তৎকালীন পাকিস্তান সরকার বাংলা ভাষাকে জাতীয় ভাষা হিসেবে অস্বীকার করে এবং পাকিস্তানের একমাত্র সরকারি ভাষা হিসেবে উর্দুকে চাপিয়ে দেয়ার প্রতিবাদে শিক্ষার্থী ও ঢাকার সাধারণ মানুষ রাজপথে নেমে আসে। ১৯৫২ সালের এই দিনে বাংলাকে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষার দাবিতে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে একটি মিছিল বের হয়। এসময় পুলিশের গুলিতে সালাম, বরকত, রফিক, জব্বারসহ আরও কয়েকজন নিহত হন । এসময় ৪৭নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী মোঃ সুমন ইসলাম বলেন, দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের নেতৃত্বে আমরা স্বাধীন দেশ পেয়েছি। নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানার জন্য আহŸান জানাচ্ছি । বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীন করেছেন আর জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশেকে অর্থনৈতিক মুক্তি দিয়েছেন। দেশের শিক্ষার খাত থেকে শুরু করে সকল পর্যায়ে আজকে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, ২০২১ সালে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের রাষ্ট্রে পরিণত হবে। আর ২০৪১ সালে বাংলাদেশ উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ হবে। সে জন্য আগামী জাতীয় নির্বাচনে শেখ হাসিনা তথা নৌকা মার্কাকে বিজয়ী করে দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে । জনাব সুমন ইসলাম আরও বলেন, রক্ত দিয়ে মায়ের ভাষার অধিকার আদায়ের মাস ফেব্রুয়ারী । ১৯৪৭ সালে দ্বিজাতি তত্বের ভিত্তিতে পাকিস্তানের জন্মের পর থেকেই বঞ্চিত ও শোষিত পূর্ব-পাকিস্তানের জনগোষ্ঠী নিজের ভাষায় কথা বলার জন্য ১৯৪৭ সাল থেকে যে সংগ্রাম শুরু করে তা বিভিন্ন চডাই উতরাই পেরিয়ে চূডান্তরূপ লাভ করেছিল ১৯৫২ এর ২১ শে ফেব্রুয়ারী । তবে ভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য বাঙালি জনগোষ্ঠীকে অপেক্ষা করতে হয়েছে আরো দীর্ঘ ৫টি বছর । ১৯৫৬ সালের ২৬ শে ফেব্রুযয়ারী পাকিস্তান সংবিধান উর্দুর পাশাপাশি বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা হিসাবে স্বীকৃতি প্রদান করে । দীর্ঘ সংগ্রামের পর অর্জিত হয় মায়ের ভাষায় কথা বলার স্বাধীনতা, আর এই ভাষা আন্দোলনের সাফল্যের পথ বেয়েই রোপিত হয় স্বাধীন বাংলাদেশের বীজ ।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *