মধ্যপাড়া পাথর খনিতে ১৮ দিন ধরে উত্তোলন বন্ধ বিক্রি শুন্যের কোঠায়

মধ্যপাড়া পাথর খনিতে ১৮ দিন ধরে উত্তোলন বন্ধ বিক্রি শুন্যের কোঠায়

আল মামুন মিলন, পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:
মধ্যপাড়া পাথর খনির পাথর উত্তোলন কাজে ব্যবহৃত ইকুইপমেন্ট (যন্ত্র) বিকল হওয়ায় ১৮ দিন ধরে পাথর উত্তোলন বন্ধ রয়েছে। কবে নাগাদ পাথর উত্তোলন শুরু হবে খনি কর্তৃপক্ষ তা সঠিক ভাবে বলতে পারছে না। পাথর উত্তোলন না হওয়ায় বিক্রিও হচ্ছে না মধ্য পাড়ার পাথর। ফলে খনি সারফেস ভাগের হার্ডরক ইয়ার্ডে পাহাড় সম পাথরের স্তুপ জমা হয়ে আছে। এতে করে দেশীয় বাজারে পাথরের মূল্য দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে। খনির একটি নির্ভরশীল সুত্র থেকে এ তথ্য জানা গেছে। মধ্যপাড়া খনির পাথর উত্তোলন কাজে ব্যবহৃত উইন্ডিং মেশিনের গিয়ার বক্সের পিনিয়াম হঠাৎ করে ভেঙ্গে যায়। যে কারনে গত ৩ এপ্রিল রাত থেকে পাথর উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়। চীন থেকে আমদানীকৃত উইন্ডিং মেশিনটির পুরো গিয়ার বক্স পরিবর্তন করতে হবে নাকি শুধু পিনিয়াম হলেই চলবে এ বিষয়ে ক্ষনি কর্তৃপক্ষ ও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কেউই মুখ খুলছে না। অপর দিকে বিকল মেশিনটি মেরামত করতে কতদিন সময় লাগবে এবং কবে নাগাদ পাথর উৎপাদন শুরু হবে সেটি অনিশ্চিত। সুত্র মতে, খনির উৎপাদন ব্যবস্থার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসি উইন্ডিং মেশিন সরবরাহকারী চীনা কোম্পানীর সাথে যোগাযোগ করে গিয়ারবক্স মেরামতের উদ্যোগ নিয়েছে। এদিকে, বছর খানিক ধরে মধ্যপাড়া খনির পাথর বিক্রিতে গতি নেই। এর ফলে খনি ইয়ার্ডে বিপুল পরিমাণ পাথরের মজুদ গড়ে উঠেছে। বর্তমানে খনি ইয়ার্ডে বিভিন্ন সাইজের প্রায় ৬ লাখ টন পাথরের মজুদ রয়েছে। এ অবস্থায় পাথর বিক্রিতে গতি আনতে পাথরের মুল্য কমানোর উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলে জানানো হয়েছে। খনি কর্তৃপক্ষ বলছে, সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৬ চাকার গাড়ীতে ট্রাকসহ ২২ টনের বেশী এবং ১০ চাকার গাড়ীতে ট্রাকসহ ৩০ টনের বেশী মালামাল পরিবহণ করা যাবে না। সরকারি এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে গিয়েই খনির পাথর বিক্রি কমে গেছে। ট্রাক মালিক ও চালকরা আগে যেখানে ৬ চাকার ট্রাকে ২০ থেকে ২৫ টন এবং ১০ চাকার ট্রাকে ৪ থেকে ৪১ টন পাথর পরিবহণ করতে পারতো। বর্তমানে সেখানে একই ভাড়ায় ৬ চাকার ট্রাকে ১৫ থেকে ১৬ টন এবং ১০ চাকার ট্রাকে ১৯ থেকে ২০ টনের বেশী পাথর পরিবহণ করতে পারছে না ট্রাক বন্ধবস্থ কর্তৃপক্ষ। জোর দিয়ে বলা হচ্ছে এর কারনেই খনি কর্তৃপক্ষ ক্রেতা হারিয়েছে এবং বিক্রি কমে গেছে। মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানী লিমিটেডের (এমজিএমসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাবেদ চৌধুরী হতাশা ব্যক্ত করে বলেন- খনির পাথর উৎপাদনকারী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসি উইন্ডিং মেশিন মেরামত করে কবে নাগাদ পাথর উৎপাদন শুরু করতে যাচ্ছে এখনও সুনির্দিষ্ট ভাবে জানায়নি। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটির সাথে মুঠোফোনে বার বার যোগাযোগের চেষ্ঠা করেও পাওয়া যায়নি।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *