রংপুরে পুলিশি বাধায় বাম জোটের সংবাদ সম্মেলন পন্ড নেতৃবৃন্দের তীব্র নিন্দা

রংপুরে পুলিশি বাধায় বাম জোটের সংবাদ সম্মেলন পন্ড নেতৃবৃন্দের তীব্র নিন্দা

পিপিপি এর নামে সরকারি পাটকলকে ব্যক্তি মালিকের হাতে তুলে দেয়া ও করোনার পরীক্ষায় ফি আরোপের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ রংপুরে বাম গণতান্ত্রিক জোটের অবস্থান কর্মসূচি পালনের কথা থাকলেও প্রশাসনের বাধায় তা করতে পারেনি। প্রশাসনের এই অগণতান্ত্রিক আচরণের প্রতিবাদে জোটের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। কিন্তু পুলিশ প্রশাসন সংবাদ সম্মেলনেও বাধা প্রদান করে। পুলিশের এই অসাংবিধানিক আচরণের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন বাম গণতান্ত্রিক জোট রংপুরের সমন্বয়ক ও বাসদ রংপুর জেলার আহ্বায়ক কমরেড আব্দুল কুদ্দুস, বাসদ (মার্কসবাদী) রংপুর জেলা সমন্বয়ক আনোয়ার হোসেন বাবলু, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি রংপুর জেলার সাধারণ সম্পাদক শাহীন রহমানসহ জোটের অন্যান্য জেলা নেতৃবৃন্দ। নেতৃবৃন্দ বলেন কথা বলার অধিকার প্রত্যেকটি নাগরিকের, রাজনৈতিক দলের আছে। জনগণ এবং রাজনৈতিক দলের মত প্রকাশের এই অধিকার সংবিধানে সংরক্ষিত আছে। অথচ এই দুর্যোগময় মুহূর্তে, প্রবল সংকট যখন মানুষ মোকাবেলা করছে সেই সময়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নামে মানুষের কথা বলার গণতান্ত্রিক অধিকারও কেড়ে নেয়া হচ্ছে। আমরা বিশেষভাবে রংপুরের পুলিশ প্রশাসনের কথা বলতে চাই। রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের জন্য তাদের কাছে লিখিত অনুমতি নেয়ার বাধ্যবাধকতা তৈরি করেছে তারা। সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে কোনো কর্মসূচি পালন করতে গেলেও হামলা ও গ্রেফতার করছে পুলিশ। বলছে প্রোগ্রাম করার কোন অনুমতি নেই। রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের জন্য লিখিতভাবে আবেদন করলেও তারা অনুমতি দেয় না। করোনা পরিস্থিতির অজুহাত দেখিয়ে কর্মসূচিতে বাধা দেয়। অথচ বাজারে, রাস্তাঘাটে সর্বত্র হাজার হাজার মানুষ ঝুঁকিপূর্ণভাবে চলাফেরা করছে, সেদিকে তাদের নজর নেই। সেখানে প্রশাসন নির্বিকার। কিন্তু রাজনৈতিক কোনো কর্মসূচি পালনের ব্যাপার এলেই প্রশাসন খড়গহস্ত। আমরা মনে করি যেহেতু রাজনৈতিক কর্মকান্ড সরকার নিষিদ্ধ করেনি, জনগণের মত প্রকাশ সাংবিধানিক ও গণতান্ত্রিক, মৌলিক অধিকার। কিন্তু রংপুরের পুলিশ প্রশাসন অতি উৎসাহী হয়ে অগণতান্ত্রিক ও অসাংবিধানিক উপায়ে সকল রাজনৈতিক কর্মকান্ড পালনে বাধা প্রদান করছে। আমরা ভবিষ্যতে এ ধরনের আচরণ করা থেকে পুলিশ প্রশাসনকে সংযত হওয়ার আহবান জানাচ্ছি। অন্যথায় কথা বলা এবং রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ের জন্যই বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *