রাজশাহীতে হত্যা কান্ডের শিকার পার্বতীপুরের মেধাবী ছাত্র ফারদিনের দাফন সম্পন্ন

আল মামুন মিলন, পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি-
পার্বতীপুরের মেধাবী ছাত্র ফারদিন ইনশা আশারিয়া রাব্বির (২০) লাশ বুধবার (৭ আগষ্ট) ভোর রাতে গ্রামের বাড়ী উপজেলার মোমিনপুর ইউনিয়নের মোমিনপুর গ্রামে এসে পৌঁছে। সূর্য উঠার সাথে সাথে চলতে থাকে এলাকার মানুষের উপচে পড়া ভীড় এক নজর ফারদিনের মুখ দেখার জন্য। পরিবারে চলছে শোকের মাতম। মা ও বোনদের গগন বিদারি কান্নায় আকাশ ভারি হয়ে উঠেছে সেখানকার। চার কন্যা সন্তানের মাঝে এক মাত্র পুত্র সন্তান ফারদিনকে হারিয়ে মা ফিরোজা বেগম নির্বাক হয়ে গেছেন। বোনেরা একমাত্র ছোট ভাইকে হারিয়ে দিশেহারা। মাত্র তিন মাস আগে পিতা মোজাফ্ফর হোসেনকে হায়িছেন তারা। অনেক সপ্ন বুকে নিয়ে রাজশাহী সরকারী সিটি কলেজে ভর্তি করা হয়েছিল তাকে। সে উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র । বেলা ১১টায় পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে ফারদিনকে।
ঈদ করতে বাড়িতে আসার জন্য মঙ্গলবার ভোর ৬টার সময় রাজশাহীর একটি ছাত্রাবাস থেকে বের হয়ে রেলষ্টেশনে যাওয়ার প্রাক্কালে শহরের হেতেম খা ও বর্নালি রোডের মাঝামাঝি স্থানে দুবৃত্তরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। বন্ধু রিপনের সঙ্গে ট্রেনের একটি মাত্র সিট ভাগা ভাগি করে পার্বতীপুরে পৌঁছানোর কথা ছিলো তাদের। রিপন ষ্টেশনে পৌঁছে ট্রেনে উঠার পর ফারদিনকে না পেয়ে ফোন দেয়। অপর প্রান্ত থেকে রিসিভ করেন রাজশাহী পুলিশ। বলা হয় অল্প কিছুক্ষন পূর্বে ফারদিন হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছে। এরপর রিপন ট্রেন থেকে নেমে রাজশাহী মেডিকেল কলেজে হাসপাতালের মর্গে গিয়ে ফারদিনের নিথর মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে। পুলিশ জানায়, লাশ উদ্ধারের সময় ব্যাগ মানিব্যাগ ও মোবাইল ফোনটি লাশের পাশে পড়ে ছিলো। এসংবাদ পাঠানো পর্যন্ত ফারদিনের বড় বোন বাদি হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন বলে জানা যায়।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *