সুন্দরগঞ্জে ৭ মেধাবী শিক্ষার্থীর এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ অনিশ্চিত

সুন্দরগঞ্জে ৭ মেধাবী শিক্ষার্থীর এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ অনিশ্চিত

গাইবান্ধা প্রতিনিধি ঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে ৭ মেধাবী শিক্ষার্থীর এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।
জানা যায়, উপজেলার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আব্দুল মজিদ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ মেধাবী শিক্ষার্থীর এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ না হওয়ায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে চরম উৎকন্ঠা।
বিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, এই মেধাবী ৭ শিক্ষার্থী ২০১৫ সালে ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হয়। তারা এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত জেএসসি পরীক্ষায় কৃতিত্ব’র সাথে জিপিএ-৫.০০ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়ে নবম-দশম শ্রেণিতে নিয়মিতভাবে অধ্যয়ন করে আসছে। ওই মেধাবী ৭শিক্ষার্থী নবম শ্রেণিতে বিজ্ঞান বিভাগে যথা-যথভাবে রেজিষ্ট্রেশনও সম্পন্ন করে। বিদ্যালয় কর্তৃক অনুষ্ঠিত নির্বাচনী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে আসন্ন এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের জন্য ফরম পূরণের
নির্ধারিত ফি শ্রেণি শিক্ষক ফাতেমাতুজ জোহরার নিকট জমা দেন। তবে দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক প্রেরিত চূড়ান্ত তালিকায় শিক্ষার্থী -মোঃ মাহি শাহারিয়ার মিতুল, মোঃ ইমরানুল ইসলাম ইশাদ, মোঃ মারুফ আহমেদ শাকিল, সুমন কুমার সরকার, মোঃ আশিকুর ইসলাম সুমন, মোঃ মাহদি-উল-হাসান মীম ও মোঃ সৌরভ হাসান শাওন’র নাম নেই বলে জানা যায়। এ নিয়ে মেধাবী ৭ শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের মধ্যে চরম উৎকন্ঠা দেখা দিয়েছে। পড়াশোনায় মনোনিবেশও করতে পাচ্ছেন না এসব পরীক্ষার্থী।
অভিভাবক ও পরীক্ষার্থীদের বরাত দিয়ে জানা যায়, আঃ মজিদ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান বিভাগে রেজিষ্ট্রেশনভুক্ত চূড়ান্ত তালিকায় নাম না আসা সেই ৭ পরীক্ষার্থীর নামে উপজেলার আঃ কাদের আদর্শ বিদ্যালয়ে একই তথ্য সম্বলিত অন্য ছবি ব্যবহার পূর্বক মানবিক বিভাগে রেজিষ্ট্রেশন হয়।
কারও প্রতি অভিযোগ না করে এসব মেধাবী শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণ ঐতিহ্যবাহী এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান’র সুনাম অক্ষুন্ন রেখে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই যাতে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ করে আসন্ন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে পারেন তেমনটিই প্রত্যাশা করেন তারা। সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষসহ শিক্ষা বোর্ড প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন ৭মেধাবী শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।
বিষয়টি নিশ্চিত করে আব্দুল মজিদ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক- শফিকুল ইসলাম জানান, শুধুমাত্র এই ৭ মেধাবী শিক্ষার্থীই নয়, উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ের ২৪ শিক্ষার্থীর একই সমস্যা হয়েছে। তবে আমার বিদ্যালয়ের এই শিক্ষার্থীরা অবশ্যই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *