১৮ মাসের পরিকল্পনায় হত্যা করা হয় সোলাইমানিকে

১৮ মাসের পরিকল্পনায় হত্যা করা হয় সোলাইমানিকে

দীর্ঘ ১৮ মাস আগে থেকেই ইরানের বিপ্লবী গার্ডের কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার পরিকল্পনা করা হচ্ছিল বলে জানা গেছে। বিভিন্ন সংগঠনের এজেন্টদের সঙ্গে যুক্ত হয়ে এই পরিকল্পনা করছিল মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পেন্টাগন।

গত কয়েকদিন ধরেই সোলাইমানি হত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রে। এমন পরিস্থিতির মধ্যেই প্রকাশ পেল এই  তথ্য। ট্রাম্প প্রশাসন এবং মার্কিন সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তাদের সাক্ষাতকারের ভিত্তিতে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে নিউইয়র্ক টাইমস। সেই প্রতিবেদনেই জানানো হয় দীর্ঘ ১৮ মাস ধরে সোলাইমানিকে হত্যার পরিকল্পনা করছিল পেন্টাগন।

গত ৩ জানুয়ারি ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ড্রোন হামলায় সোলাইমানিকে হত্যা করা হয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশেই এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয় জানিয়ে এক বিবৃতি প্রকাশ করে পেন্টাগন।

ইরানের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর নেতা ছিলেন জেনারেল সোলাইমানি। গত কয়েক মাস ধরে সোলাইমানি কি করছে, কোথায় যাচ্ছে সেসব বিষয়ে খোঁজ রাখছিল পেন্টাগন। সোলাইমানির গতিবিধির বিষয়ে খোঁজ রাখতে পৃথক পরিকল্পনাও করে যুক্তরাষ্ট্র।

এই বিষয়ে সাতটি আলাদা সংগঠনের এজেন্টদের সঙ্গে কাজ করেছে তারা। সিরীয় সামরিক বাহিনী, দামেস্কে অবস্থিত কুদস ফোর্স, দামেস্কের হিজবুল্লাহ, দামেস্ক এবং বাগদাদ বিমানবন্দর, কাতাইব হিজবুল্লাহ, ইরাকের পপুলার মোবিলাইজেশন ফোর্স’র বিভিন্ন এজেন্ট সোলাইমানি সম্পর্কে তথ্য দেয় যুক্তরাষ্ট্রকে।

সূত্র- ডেইলি মেইল

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *