ফুলবাড়ী মাইক্রোয়েব স্টেশনটির বেহাল অবস্থা দেখার কেউ নেই ॥

ফুলবাড়ী মাইক্রোয়েব স্টেশনটির বেহাল অবস্থা দেখার কেউ নেই ॥

দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলায় অবস্থিত মাইক্রোয়েব স্টেশনটির বেহাল অবস্থা দেখার কেউ নেই। দিনাজপুরের পূর্বাঞ্চলের ৬টি উপজেলার টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থার প্রসার ঘটার লক্ষ্যে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয় কর্তৃক ১৯৭৯ সালে ফুলবাড়ী পৌরশহরের মেইন রোডে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয় কর্তৃক জায়গা ক্রয় করে সেখানে মাক্রোয়েব স্টেশনটি স্থাপন করেন। গত ৪০ বছর পার হয়ে গেলেও ফুলবাড়ী মাইক্রোয়েব স্টেশনটি সংস্কারে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয়ের কোন দৃষ্টি নেই। সেই সময় মাইক্রোয়েব স্টেশনের ভিতরে নির্মাণকৃত বাসাবাড়িগুলি এখন বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বাসাবাড়িগুলির ইট, দরজা, জানালা ও অন্যান্য আসবাসপত্র গুলি দিনের পর দিন চুরি হয়ে যাচ্ছে। এখন সুধু ঘরগুলি পড়ে রয়েছে। বর্তমান পরিত্যাক্ত বাসাবাড়িগুলিতে আগাছা জন্ম নিয়েছে, দেখে মনে হচ্ছে মাইক্রোয়েব স্টেশনটি দেখাশুনার কেউ নেই। বাউন্ডারি ওয়ালগুলি ভেঙ্গেপড়ে গেছে। বর্তমান চারিদিক থেকে লোকজন ঢুকেপড়ে এবং মাদক সেবীদের আখড়ায় পরিনত হয়েছে। বর্তমান মাইক্রোয়ের স্টেশনের সামনের জায়গাগুলি দখল হয়েগেছে। অনেকে জায়গা দখল করে কাচাঁ-পাকা ঘর নির্মাণ করে দেদারছে ব্যবসা করছেন। ভিতরে ইরি বোরো ও আমন ধান চাষ করা হচ্ছে। একটুখানি পুকুর রয়েছে সেখানে কে বা কাহারা মাছ চাষ করছে। বর্তমান মাইক্রোয়েব স্টেশনের মূল বিল্ডিংটি যেখানে মাইক্রোয়েব স্টেশনের সমস্ত মেশিনপত্র স্থাপন রয়েছে সেই ঘরটি নষ্ট হয়েগেছে। বর্তমান ঘরটির ছাদ থেকে প্লাষাটার খুলে পড়ছে। এক সময় এই মাক্রোয়েব স্টেশনটি দেখাশুনার জন্য টেলিযোগযোগ মন্ত্রনালয়ের নিয়োগকৃত জনবল ছিল। এখন সেই জনবল নাই বললেই চলে। বর্তমান টিএনটি’র দায়িত্বে কারা রয়েছে তাদেরকে অফিসে গিয়ে খুজে পাওয়া যায়না। সবসময় মাইক্রোয়েব স্টেশনের মূল গেটটি বন্ধ রাখা হয়েছে। সরকার বিপুল পরিমান অর্থ ব্যায় করে মাইক্রোয়েব স্টেশনটি স্থাপন করলেও এখন ভুতুড়ে হয়ে পড়ে আছে। কার্যক্রম থাকলেও জনবল নেই। এ ব্যাপারে বিভিন্ন রাজনৈতিক মহল ও স্থানীয় জনগণ মাইক্রোয়েব স্টেশনটির বাউন্ডারি ওয়ালসহ বাসাবাড়ি গুলি সংস্কার করার জন্য টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয়ের আসু হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন।

Loading Facebook Comments ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *